মেয়েকে উত্যক্ত করছে দেখে এগিয়ে এসেছিলেন বাবা। প্রতিবাদ করায় নবম শ্রেণির ওই ছাত্রীকে ছেড়ে এ বার তার বাবা মাঝ বয়সী নীলমণি দেবের উপরেই চড়াও হয় দুষ্কৃতীরা। পড়তে থাকে অবিরাম চড়, কিল, ঘুঁষি। গুরুতর জখম নীলমণিবাবুকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। রাতে অবশ্য তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয় বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে। শুক্রবার সন্ধের ওই ঘটনা রায়গঞ্জের সুভাষগঞ্জ এলাকায়। তবে রাতেই এলাকায় তল্লাশি চালিয়ে পুলিশ এক কিশোরকে গ্রেফতার করেছে। প্রকাশ দাস নামে ওই কিশোর দশম শ্রেণির ছাত্র। আদালতে তার জামিন না-মঞ্জুর হয়েছে। তবে প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়ায় ওই কিশোরকে জুভেনাইল বোর্ডের হেফাজতে পাঠানো হয়েছে। ওই ঘটনায় আরও কয়েক জনের খোঁজ করছে পুলিশ। ওই দিন রাতে টিউশন নিয়ে নীলমণিবাবুর সঙ্গেই ফিরছিল ওই ছাত্রী। বাড়ির সামনে পৌঁছে এক পড়শির সঙ্গে কথা বলছিলেন তিনি। পাশে দাঁড়িয়েছিল মেয়ে। তাঁদের সামনেই ওই ছাত্রীকে ‘বিরক্ত’ করা শুরু করে ওই যুবকেরা। নীলমণিবাবু প্রতিবাদ করায় ফল হয় উল্টো। বাড়ির সামনেই তাঁর উপরে চড়াও হয় যুবকেরা।

Advertisements